নতুন পেনশন স্কিম প্রত্যয় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের সুবিধা ‘কমবে’

নতুন পেনশন স্কিম প্রত্যয় ব্যবস্থায় সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সুবিধা ‘কমবে’। শিক্ষকেরা তাই নতুন ব্যবস্থাটি প্রত্যাহারের দাবি করছেন। এ দাবিতে আজ সোমবার থেকে সব সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

আজকে ১ জুলাই চালু হচ্ছে নতুন পেনশন কর্মসূচি ‘প্রত্যয়’

নতুন অর্থবছরের (২০২৪-২৫) শুরুর দিন আজ চালু হচ্ছে সর্বজনীন পেনশনের কর্মসূচি ‘প্রত্যয়’। স্বশাসিত, স্বায়ত্তশাসিত, রাষ্ট্রায়ত্ত, সংবিধিবদ্ধ বা সমজাতীয় সংস্থা এবং তাদের অধীন অঙ্গপ্রতিষ্ঠানগুলোর চাকরিতে আজ ১ জুলাই থেকে যাঁরা যোগ দেবেন, তাঁদের জন্য এ কর্মসূচি প্রযোজ্য হবে।

তবে সিদ্ধান্তটিকে ‘বৈষম্যমূলক’ আখ্যা দিয়ে এর বিরোধিতা করে আসছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে বর্তমান পেনশন ব্যবস্থা ও নতুন পেনশন ব্যবস্থার তুলনামূলক একটি চিত্র তৈরি করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বর্তমান পেনশন ব্যবস্থা এবং নতুন কর্মসূচি

কমিটির পর্যালোচনা প্রতিবেদন বলছে, নতুন পেনশন ব্যবস্থায় মাসে মাসে এখনকার চেয়ে ২ দশমিক ৭ গুণ টাকা পাওয়া যাবে। কিন্তু এ জন্য শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন থেকে টাকা কাটা হবে। অবসরের পর কোনো এককালীন টাকা পাওয়া যাবে না, বছর বছর পেনশন বাড়বে না এবং পেনশনারের মনোনীত ব্যক্তি এখনকার মতো আজীবন পেনশন পাবেন না। আরও কয়েকটি সুবিধা না থাকার বিষয়টি উল্লেখ করে শিক্ষকেরা বলছেন, সব মিলিয়ে নতুন ব্যবস্থায় তাঁদের সুবিধা কমে যাবে। এটা বৈষম্যমূলক।

ফাইভ-জি সেবা চালুর নির্দেশ! ৩০ অক্টোবরের মধ্যে

অবশ্য নতুন কর্মসূচি চালু করতে অনড় জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে অন্য কোনো সংস্থার পক্ষ থেকে প্রত্যয় চালুর কোনো বিরোধিতা আসেনি বলেও পেনশন কর্তৃপক্ষের দাবি। সংস্থাটির সদস্য মো. গোলাম মোস্তফা গতকাল রোববার প্রথম আলোকে বলেন, ‘সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১ জুলাই থেকেই প্রত্যয় চালু হবে। আমরা হিসাব করে দেখেছি, যাঁদের জন্য এটি প্রযোজ্য, তাঁরা লাভবানই হবেন। কোনো অসংগতি ধরা পড়লে ভবিষ্যতে সংশোধন করা যাবে। এখনই এ নিয়ে বিরোধিতার কিছু নেই।

ভূমি উন্নয়ন করের নতুন যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ

চারটি আলাদা কর্মসূচি (স্কিম) নিয়ে সর্বজনীন পেনশন ব্যবস্থার যাত্রা শুরু হয় গত বছরের ১৭ আগস্ট। এগুলো হলো প্রগতি, সুরক্ষা, প্রবাস ও সমতা। কর্মসূচিগুলোর আওতায় গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৩ লাখ ৩২ হাজার ৭৭৩ জন গ্রাহক হয়েছেন। জমা পড়েছে ৯৭ কোটি টাকা।

Leave a Comment